Health Tips

শরীর সুস্থ রাখার কার্যকরী উপায়

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। আশাকরি আল্লাহর অশেষ রহমতে আপনারা সবাই ভালো আছেন। আজকে আমি আপনাদের সাথে এমন একটি বিষয় শেয়ার করতে যাচ্ছি যেটি আপনার শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে আমাদের শরীরক সুস্থ রাখা যায়।

আজকালের এই ব্যস্ততার জীবনে আমরা আমাদের খাওয়া-দাওয়ার উপর  নজর দেই না। যার কারণে আমাদের শরীর দুর্বল হয়ে যায় আর অনেক ধরনের রোগ ঘিরে ধরে।আমরা সকালের নাস্তা থেকে গন্ডগোলটা শুরু করি, যেমন চা পান করা বা অন্য কিছু খেয়ে রয়ে যাওয়া। আর এভাবেই পুরো দিন কেটে যায়। আমরা অনেক ব্যস্ত থাকি কিন্তু তাও আমাদের উপর একটু খেয়াল রাখা দরকার। সকালের নাস্তা দোস্ত খুবই জরুরী আর রাতের খাবার হালকা খেতে হবে। সকালের নাস্তাটা সবসময় পেট ভর্তি করে খাওয়া দরকার। আজ আমি আপনাকে এমন এক স্পেশাল ড্রিংক এর কথা বলব যা ব্যবহার করে আপনি আপনার শরীরের দুর্বলতা কাটিয়ে এনার্জিতে ভরপুর করতে পারবেন।

যার ফলে আপনার শরীরে শক্তি আসবে।এটি আপনার শরীরের দুর্বলতা কে একদম শেষ করে দিবে।

সবার প্রথমে আপনি বাজার থেকে কিনে আনুন ভালো মানের খেজুর।এবার আপনি নিয়ে নিন এক গ্লাস দুধ।এই খেজুর গুলোকে আপনাকে দুধের সাথে ব্যবহার করতে হবে। আপনি প্রথমে তিন থেকে চারটি খেজুর নিয়ে নিন তবে যদি আপনি জিম বা এক্সারসাইজ করেন তাহলে আপনি 5 থেকে 6 টি খেজুর নিয়ে নিন। মনে রাখবেন খেজুরের দানা বা বিচি গুলি বের করে নিতে হবে। একটি পাত্রে দুধ আর 5 থেকে 6 টি খেজুর কে নিয়ে ভালোভাবে  চুলায় জ্বাল দিয়ে ফুটান। তারপর এটা ঠান্ডা করে অর্থাৎ হালকা হালকা গরম বা কুসুম গরম থাকা অবস্থায় আপনি এটা পান করে নিতে পারেন। তবে এর সাথে যদি আপনি দুটো কলা খান তাহলে আরো উপকার পাবেন।

আপনি সকালে যে নাস্তা করেন সেটা আগে করে নিবেন তারপর এটা পান করে নিবেন। খেজুরের ক্ষমতা একটু গরম হয়। তবে  যাদের পেটের সমস্যা আছে তারা খেজুরের পরিমাণটা একটু কম করে নিতে পারেন। খেজুরের বিতর অধিক মাত্রায় গ্লুকোজ আর  ফ্রুক্টোজ থাকে যা এনার্জি বুস্ট করার জন্য খুবই উপকারী। এই ড্রিংক টি আপনি এক মাস ব্যবহার করলে এর উপকারিতা বুঝতে পারবেন। এর ভিতরে প্রোটিন ভরপুর মাত্রায় আছে যা শরীরের মাংস পেশী কে তৈরি করার জন্য খুবই উপকারী।

যেসব লোকেদের মাংসপেশি দুর্বল বা পাতলা সেসব লোকেদের জন্য এই ড্রিঙ্ক টি একটি মহা ঔষধ। যার শরীরে রক্তের অভাব আছে এই ড্রিঙ্ক এ প্রচুর পরিমাণে আয়রন আছে যা রক্তের অভাব পূরণ করে। এই ড্রিঙ্ক পান করলে শরীরের রক্তের প্রবাহ বাড়ে যা  আপনার শরীরের চামড়া বুড়িয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করে।

এই ড্রিঙ্ক যদি আপনি প্রতিদিন সকালের নাস্তা করার পর ব্যবহার করুন তাহলে অবশ্যই আপনি আপনার শরীরের মধ্যে অনেক পরিবর্তন লক্ষ করতে পারবেন যা  আপনার সুস্থ ও সুন্দরভাবে জীবন যাপন করার জন্য খুবই উপকারী

Leave a Reply

Back to top button
Close